রোনালদোকে দেখে ঈর্ষা হয় জিদানের

ronaldo-zidane20170501221042.jpg

ফুটবল ইতিহাসে দুই রোনালদো। একজন রেনোলদো নাজারিও। ব্রাজিলিয়ান গ্রেট। আরেকজন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। অবসর নেয়ার আগেই যিনি কিংবদন্তিতে রূপান্তরিত হয়েছে। জিনেদিন জিদানের সৌভাগ্য এক রোনালদোর সতীর্থ হিসেবে রিয়াল মাদ্রিদে খেলেছেন। আরেক রোনালদোরই কোচ হিসেবে রিয়াল মাদ্রিদে দায়িত্ব পালন করছেন।

তবে রোনালদোদের দেখে দারুণ ঈষা হয় জিদানের। কারণ, খেলোয়াড় থাকাকালীন এক রোনালদোকে তিনি শুধু গোলের বল বানিয়ে দিয়েছেন। ব্রাজিলিয়ান রোনালদোর কাজ ছিল নিখুঁত ফিনিশিং দেয়া। আরেক রোনালদোকে দেখছেন, একের পর এক প্রতিপক্ষের জালে বল জড়াতে।

প্রতিপক্ষের জালে বল জড়ানোর, গোল দেয়ার রোমাঞ্চই অন্যরকম। যিনি গোল দেন তিনিই কেবল বোঝেন এই রোমাঞ্চের মজাটা কেমন। জিদানের সেই মজা নেয়ার সুযোগ ছিল খুবই কম। এ কারণেই মূলতঃ স্কোরার রোনালদোদের দেখলে ঈর্ষা হয় তার। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালের প্রথম লেগের আগে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে নিজেই এ কথা জানালেন জিদান।

কোচ হিসেবে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে কেমন দেখছেন? জানতে চাইলে জিদান বলেন, ‘কোচ হিসেবে আমি বলবো, আমার দেখা ফুটবলারদের মধ্যে সে হচ্ছে সেরা। তার সঙ্গে খেলার সুযোগ হয়নি আমার। তবে দুর্ভাগ্য বশতঃ তার বিপক্ষে খেলেছিলাম। তার পরিসংখ্যান সত্যিই চমৎকার।’

ব্রাজিলিয়ান রোনালদোর সঙ্গে খেলার স্মৃতি স্মরণ করে জিদান বলেন, ‘আমি ব্রাজিলিয়ান রোনালদোর সঙ্গে খেলেছি। তিনি ছিলেন অসাধারণ এক ফুটবলার। অনেক গোল করতেন। তাকে দেখে শুধু ঈর্ষা হতো আমার। কারণ, তাদের মত এত গোল করতে পারিনি আমি।’

কেন গোল করতে পারেননি, সে ব্যাখ্যাও দিয়েছেন জিদান। তিনি বলেন, ‘আমি গোলে অনেক সহযোগিতা করেছি। আমি শুধু বলটা পাস করে দিতাম; কিন্তু তাদের মত গোল স্কোরিং সামর্থ্য আমার ছিল না। এ কারণে তাদের মত অনুভুতিও আমার নেই। প্রতিপক্ষের জালে বল জড়ানোর রোমাঞ্চও সমানভাবে আমার নেই।’

Top