সৌদিতে গ্রেপ্তার আতংকে ৮০ হাজার অবৈধ বাংলাদেশী

ksa.jpg

সিবিএন সৌদি আরব থেকে
মধ্যপ্রাচ্যের প্রভাবশালীদেশ সৌদিআরব সরকারের ক্রাউন প্রিন্স ২৯ মার্চ অবৈধভাবে সৌদিআরবে বসবাসকারীদের ৯০ দিনের সাধারন ক্ষমার ঘোষনা করেছেন। আকামা বিহীন যে কেউ এসময়ের মধ্যে জেল জরিমানা ছাড়া দেশে ফিরতে পারবেন। সৌদি সরকারের বিশেষ ক্কমার মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ৩০ জুন। এর আগেই ট্রাভেল ডকুমেন্ট অর্থাৎ পাসপোর্ট সংগ্রহ করে দেশে ফিরতে পারবে। অন্যাথায় জেল জরিমানাসহ নানা শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে প্রবাসীদের।
সৌদিআরবে বর্তমানে অবৈধভাবে বসবাসকারী ৮০ হাজার বাংলাদেশী গ্রেফতারের আতংকে দিন কাটাচ্ছে। জনবল সংকটে অনেক প্রবাসী বাংলাদেশীদের অভিযোগ, সৌদি রিয়াদ দূতাবাস ও জেদ্দা কনস্যুলেটে ট্রাভেল ডকুমেন্ট ইস্যু করতে সমস্যায় পড়ছে।
এদিকে সৌদিআরবের রিয়াদ দূতাবাস ও জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেটের সামনে অবৈধ প্রবাসীদের ভীড় বাড়ছে। এই বিষয়টির সম্পর্কে ইতিমধ্যে সৌদি আরবে নিযুক্ত রাস্ট্রদূত গোলাম মসিহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মূখ্যসচিব, স্বরাস্ট্র মন্তণালয়ের সুরক্কা ও সেবা বিভাগের সচিব, পররাস্ট্র মন্তণালয়ের সচিব এবং প্রবাসী কল্যান সচিব কে চিঠির মাধ্যমে জানিয়েছেন। প্রবাসী কল্যান মন্তণালয়ের সূত্রে জানা গেছে, কয়েক হাজার বাংলাদেশী রিয়াদ ও জেদ্দা কনস্যুলেট অফিসের সামনে পাসপোর্টের জন্য প্রতিদিন ভীড় করছেন। স্বরাস্ট্রমন্তণালয়ের সুরক্কা সেবা বিভাগ কে লেখা চিঠিতে তারা জানিয়েছেন সৌদিআরবে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীদের ট্রাভেল ডকুমেন্ট ইস্যু করতে আরো অতিরিক্ত ৫০ জন অস্হায়ী কর্মচারী নিয়োগ করা প্রয়োজন। তাই স্হানীয় পর্যায় লোক নিয়োগের মাধ্যমেই এ সমস্যা সমাধান করা যেতে পারে। অন্যথায় অবৈধ বাংলাদেশী প্রবাসীদের জেল জরিমানা সহ শাস্তি ভোগ করতে হবে। এর আগে ও ২০১৩ সালে সাধারন ক্কমার ঘোষনা করা হয়েছিল। তখন অবৈধ প্রবাসীদের সুবির্ধাতে আরো কয়েক দফা সময় বাড়ানো হয়। জানা গেছে, সৌদিআরবে হজ বা উমরা করতে গিয়ে অনেক বাংলাদেশী আর দেশে ফেরত আসেনা।ফলে ভিসার নির্ধারিত মেয়াদ শেষে পরবর্তীতে তারা অবৈধ হয়ে পড়েন।তবে গত দেড় মাসে সৌদিআরব সরকারের দেয়া সাধারন ক্ষমায় ২৬ হাজার অবৈধ বাংলাদেশীর ট্রাভেল ইস্যু হয়েছে।তারা পর্যায় ক্রমে টিকেট কেটে সৌদিআরব ত্যাগ করছেন।

Top